গ্লাভস থেকে সেনা প্রতীক সরাবেন না ধোনি!!!

দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে ম্যাচে ধোনি এমন এক গ্লাভস পরে খেলেছেন, যেখানে ভারতের প্যারামিলিটারি বাহিনীর প্রতীক আঁকা ছিল। ব্যাপারটা নজরে আসার সঙ্গে সঙ্গে ধোনিকে সেই গ্লাভস পরতে নিষেধ করেছে। তবে আইসিসির আদেশ মানতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড— বিসিসিআই।

ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচের ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো বাহিনীর প্রতীকওয়ালা গ্লাভস পরে খেলেছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসের ৪০তম ওভারে সেটি টিভি রিপ্লেতে সবার চোখে পড়ে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর স্পেশাল ফোর্সের (কমান্ডো) প্যারাসুট রেজিমেন্টের। ধোনির দেশপ্রেম নিয়ে চারপাশে প্রশংসা শুরু হলেও ব্যাপারটা ভালোভাবে নেয়নি আইসিসি। ধোনিকে এই গ্লাভস পরে নামতে মানা করেছে তারা। কিন্তু আপত্তি জানিয়েছে বিসিসিআই।

 

বিসিসিআই জানিয়েছে, ধোনির গ্লাভসের ওই প্রতীকের সঙ্গে সেনাবাহিনীর কোনো সম্পর্ক নেই। তাই ধোনি সেই গ্লাভস পরেই খেলবেন। আর ধোনি যেন সেই গ্লাভস জোড়া পরতে পারেন, সে জন্য আইসিসির অনুমতিও চেয়েছে বিসিসিআই।

প্রতীকটির অপর নাম ‘বলিদান ব্যাজ’। ব্যাজটি শুধু প্যারা কমান্ডোরা ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু ধোনি সেই ব্যাজ পরে নেমেছিলেন বিশ্বকাপের ম্যাচে। মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যাওয়া রিপ্লের সেই ভিডিওটি দেখে ভারতীয়রা ধোনির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেও আইসিসির নীতিমালার সঙ্গে সেটি ছিল সাংঘর্ষিক। এতে আইসিসির পোশাক এবং ক্রীড়া সামগ্রী সম্পর্কিত আইনের লঙ্ঘিত হয়েছে বলেও কথা উঠেছে। ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা স্বাভাবিকভাবেই সেই গ্লাভস পরতে নিষেধ করেছিল ধোনিকে। আইসিসির স্ট্র্যাটেজিক কমিউনিকেশনস বিভাগের মহাব্যবস্থাপক ক্লেয়ার ফারলং সংবাদমাধ্যমকে জানান, ধোনির কিপিং গ্লাভস থেকে সেনাবাহিনীর সেই প্রতীকটি সরাতে এরই মধ্যে বিসিসিআইকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের অন্ত বর্তীকালীন কমিটির প্রধান বিনোদ রাই এই প্রতীকের ব্যবহার করতে না পারার কোনো কারণ খুঁজে পাননি, ‘আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী এমন কিছু পরা যাবে না যা ব্যবসায়িক, ধর্মীয় ও সেনাবিষয়ক কোনো কিছু নির্দেশ করে। আমাদের মতে ধোনির গ্লাভসে ধর্মীয় বা ব্যবসায়িক কোনো চিহ্ন ছিল না। প্যারা কমান্ডো বাহিনীর ওই প্রতীকও নয় এটা। তাই বলা যায়, ধোনি আইসিসির কোনো নিয়ম ভঙ্গ করেনি। আমরা আইসিসির কাছে অনুরোধ করেছি ধোনিকে যেন এই গ্লাভস জোড়া পরতে দেওয়া হয়। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচের আগেই বিসিসিআইয়ের প্রধান নির্বাহী রাহুল জোহরি আইসিসির সঙ্গে এই ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা করতে বসবেন।’

সেনাবাহিনীর সঙ্গে ধোনির সম্পর্কটা পুরোনো। ২০১১ সালে সেনাবাহিনীর প্যারাসুট রেজিমেন্টের সম্মানসূচক লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদ পেয়েছিলেন তিনি। ২০১৫-তে প্যারা ব্রিগেডের সঙ্গে ট্রেনিংয়েও অংশ নিয়েছেন ধোনি। গত বছরের এপ্রিলে ভারতের অন্যতম রাষ্ট্রীয় পুরস্কার পদ্মভূষণ গ্রহণ করতে রাষ্ট্রপতি ভবনে গিয়েছিলেন সেনাবাহিনীর পোশাক পরেই।

0
0
By | 2019-06-07T18:39:23+00:00 June 7th, 2019|খেলার খবর, নিউজ|0 Comments

About the Author:

Leave A Comment

error: Content is protected !!